যোগ্য মানুষের সন্ধানে

সৃষ্টিগতভাবে প্রতিটি মানুষই যোগ্য। যোগ্যতা বাহ্যিক কোনো বিষয় নয়, এটা অন্তরগত বিষয়। অন্তরগত বিষয়কে অন্তরেই অনুসন্ধান বা উপলব্ধি করতে হয়। প্রত্যেকে হয়তো নিজের ভেতরে লুকিয়ে থাকা যোগ্যতাকে উপলব্ধি করতে পারে না, তাই বাস্তব জীবনে প্রত্যেকের যোগ্যতার সঠিক প্রতিফলন ঘটে না। আত্মসচেতনতা ছাড়া নিজের ভেতরে লুকিয়ে থাকা যোগ্যতাকে অনুসন্ধান বা উপলব্ধি করার আর কোনো বিকল্প পথ নেই। এই দৃষ্টিকোণ থেকে বলা যায়, আত্মসচেতনতাই একজন মানুষের মৌলিক যোগ্যতা যা সকল যোগ্যতার পথ প্রদর্শক।

আর মানবিকতা হলো এমন একটি প্রাথমিক যোগ্যতা যেটি ছাড়া একজন আত্মসচেতন মানুষ কল্পনা করা যায় না। মানবিকতা নামক যোগ্যতার পূর্ণাঙ্গ রূপ হলো দেশপ্রেম। একজন খাঁটি দেশপ্রেমিকের আত্মসচেতনতা তাঁর দেশ ও জাতির ইতিহাস ঐতিহ্য, সম্মান, সমৃদ্ধি তথা সামগ্রিক উন্নয়ন ভাবনার সাথে গভীরভাবে সম্পৃক্ত। 

খাঁটি দেশপ্রেমিকের সমন্বিত শক্তি ছাড়া আত্মসচেতন বাংলাদেশের লক্ষ্য অর্জন করা অসম্ভব। সারা দেশে এমনকি সারা পৃথিবী জুড়ে যে সব বাংলাদেশি ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছেন তাঁদের মধ্য থেকে খাঁটি দেশপ্রেমিকদের সন্ধান করা আত্মসচেতন বাংলাদেশের এক গুরুত্বপূর্ণ মিশন। খাঁটি দেশপ্রেমিকদের অনুসন্ধানের মাধ্যমে তাঁদের সমন্বিত শক্তিকে আত্মসচেতনতার উন্নয়নমূলক বিভিন্ন প্রকল্পে সম্পৃক্ত করণের মধ্যে দিয়ে ২০৭১ সালের মধ্যে বিশ্বের বুকে একটি আদর্শ আত্মসচেতন রাষ্ট্র হিসাবে বাংলাদেশকে প্রতিষ্ঠিত করার স্বপ্ন সফল করা সম্ভব।

আত্মসচেতনতাই সকল যোগ্যতার পথ প্রদর্শক। মানবিকতা হলো একজন আত্মসচেতন মানুষের প্রাথমিক যোগ্যতা। আর মানবিকতার পূর্ণাঙ্গ রূপ হলো দেশপ্রেম। সারা দেশে এমনকি সারা পৃথিবী জুড়ে ছড়িয়ে থাকা বাংলাদেশি খাঁটি দেশপ্রেমিকদের সন্ধান করে আত্মসচেতন বাংলাদেশ বিনির্মাণে সম্পৃক্ত করার মাধ্যমেই কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছা সম্ভব।

  • খাঁটি দেশপ্রেমিক অর্থাৎ যোগ্য মানুষ অনুসন্ধানের জন্য নির্দিষ্ট নীতিমালা অনুসরণ করা হবে।
  • যোগ্য মানুষদের সন্ধান করে আত্মসচেতন বাংলাদেশের স্থায়ী ডেইটা বেইজে সংযুক্ত করা হবে।
  • আত্মসচেতনতার বিভিন্ন ক্ষেত্রের উন্নয়নের লক্ষ্যে নির্বাচিত “যোগ্য মানুষদের” নিয়ে বিভিন্ন সেমিনার ও ওয়ার্কশপের আয়োজন করা হবে।
  • যোগ্য মানুষরাই আত্মসচেতনতার বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের দায়িত্ব প্রাপ্ত হবেন।
  • যোগ্য মানুষরা আত্মসচেতনতার বিভিন্ন ক্ষেত্রে যোগ্যতর মানুষ তৈরির কাজেও নিজেদের নিয়োজিত করবেন।

দেশ ও দেশের বাইরে বাংলাদেশি বিভিন্ন দক্ষ, প্রতিষ্ঠিত ও প্রথিতযশা ব্যক্তিত্বের নাম “আত্নসচেতন বাংলাদেশের যোগ্য মানুষ” হিসাবে অন্তর্ভুক্ত করণঃ

নাম, ছবি ও এনআইডিপেশার ক্ষেত্রপদবীপেশাগত অবস্থানদক্ষতাঅভিজ্ঞতাপ্রতিফলনমতামত

দেশ ও দেশের বাইরে বাংলাদেশি দক্ষ ব্যক্তিদের নাম “আত্নসচেতন বাংলাদেশের যোগ্য মানুষ” হিসাবে অন্তর্ভুক্ত করণঃ

নাম, ছবি ও এনআইডিপেশার ক্ষেত্রপদবীপেশাগত অবস্থানদক্ষতাঅভিজ্ঞতাপ্রতিফলনমতামত

দেশ ও দেশের বাইরে বাংলাদেশি বিভিন্ন ব্যক্তি (পর্যায়ক্রমিকভাবে তিনবার) দেশের কল্যাণে নিঃস্বার্থ ভালো কাজের অবদান রাখলে তাঁকে “আত্নসচেতন বাংলাদেশের যোগ্য মানুষ” হিসাবে অন্তর্ভুক্ত করণঃ

নাম, এনআইডি ও ছবিপেশাদারী ক্ষেত্রপদবীপেশাগত অবস্থানদক্ষতাঅভিজ্ঞতানিঃস্বার্থ কাজমতামত
  • “যোগ্য মানুষ” হিসাবে যারা বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজে বিশেষ ভূমিকা পালন করবেন তাঁদেরকে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান হিসাবে বিবেচনা করা হবে।
  • আত্মসচেতন জাতি নির্মানে যোগ্য মানুষের নাম এবং অবদান স্থায়ীভাবে সংরক্ষণ করা হবে।
  • আত্মসচেতনতার উন্নয়নের বিভিন্ন ক্ষেত্রে সেরা বা বিশেষ অবদানের জন্য বিশেষ স্বীকৃতি বা সম্মাননা পাবেন।
  • প্রত্যেক “যোগ্য মানুষই” আত্মসচেতন বাংলাদেশের পক্ষ থেকে একটা করে ভিআইপি কার্ড পাবেন। যার মাধ্যমে বিশেষ নাগরক সুবিধা যেমনঃ ১) স্বাস্থ্য সেবা, ২) যাতায়াত, ৩) নিরাপত্তার ক্ষেত্র দেশের অভ্যন্তরে বিশেষ সুযোগ সুবিধা পাবেন।
  • যেসব ক্ষেত্রে “যোগ্য মানুষরা” বিশেষ অবদান রাখবেন সেসব ক্ষেত্রে তাঁদের নিজ পরিবারের পিতা-মাতা ও সন্তানরা বিশেষ সুবিধা পাবেন।