দেশপ্রেমের চেতনা

দেশপ্রেমের চেতনা

দেশপ্রেমের সক্রিয় চেতনাই একটি জাতির উন্নতির মূল চালিকা শক্তি। জাতি হিসাবে আত্মমর্যাদাশীল ও উচ্চতর অবস্থানে পৌঁছতে হলে আত্মসচেতন হওয়ার যেমন কোনো বিকল্প নেই তেমনই দেশপ্রেমের চেতনতাকে সক্রিয় না করে দেশের উন্নয়নে কাঙ্খিত লক্ষ্য অর্জন অসম্ভব।

দেশপ্রেমের চেতনাকে সক্রিয় করতে আত্মসচেতন বাংলাদেশের পদক্ষেপগুলো হলোঃ

বিভিন্ন শ্রেণি, বয়স এবং পেশা অনুযায়ী মানুষেদের-
♦ আত্মশক্তিকে উজ্জীবীত করা
♦ উদ্যম ও কর্মস্পৃহা বৃদ্ধি করা
♦ সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যে মনঃসংযোগ, একনিষ্ঠতা এবং দৃঢ়তার উন্নয়ন ঘটানো
♦ কর্মদক্ষতা বৃদ্ধিতে দৈহিক ও মানসিক শক্তির সুব্যবস্থাপনার উন্নয়ন ঘটানো
♦ বৃহত্তর স্বার্থে ব্যক্তির মানবীয় গুণাবলীর বিকাশ ঘটানো এবং আত্মত্যাগী মনোভাব জাগ্রত করানো
♦ ব্যক্তির মধ্যে দেশপ্রমের অপরিহার্যতার আত্মউপলব্ধি তৈরি এবং দেশের কল্যাণমূলক নিঃস্বার্থ কাজে সম্পৃক্ত করা
♦ নৈতিকতা, বিবেক, দায়িত্বশীলতার উন্নয়ন এবং সক্রিয় করতে সুপরিকল্পিত ও সুনির্দিষ্ট প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে আত্মমূল্যায়নের চর্চার ব্যবস্থা করা।

উপরোক্ত বিষয়গুলো বাস্তবায়নের মাধ্যমে কার্যকরী ফলাফল পেতে নিম্নলিখিত টেকনিকগুলো সুপরিকল্পিত ও সুবিন্যস্তভাবে অন্তর্ভুক্ত করা হবে। (অ্যাপস তৈরির মাধ্যমে অনলাইনে বিভিন্ন স্তরের মানুষদের সংযুক্ত করে ভার্চ্যুয়াল ও রিয়েল উভয় জগতের কর্মকাণ্ডের ভেতর দিয়ে আকর্ষণ সৃষ্টি করে এ ধরণের চর্চার অন্তর্ভুক্ত করা হবে।)
♦ মেডিটেশন
♦ অ্যাফারমেশন
♦ ইএমটি (এনার্জি ম্যানেজমেন্ট টেকনিক)
♦ এসইটি (সেলফ ইভাল্যুয়েশান টেকনিক)
♦  ইয়োগা ও প্রাণায়ামের গাইডলাইন
♦ নিয়মিত নিঃস্বার্থ ভালো কাজের রিপোর্টিং